১০ম শ্রেণীর স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করেন আতিক হাসান । মামলার পরিপেক্ষিতে ২২ নভেম্বর ২০২০ তারিখে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করেন।

দায়েরকৃত মামলা সূত্রে জানা গেছে, সে জীবিকার তাগিদে অধিকাংশ সময় ঢাকায় বসবাস করে। তার মেয়ে (১৬) পাশ্ববর্তি কাহালু উপজেলার কালাই ঘোনপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে ১০ম শ্রেণির ছাত্রী। একই গ্রামের প্রতিবেশী প্রবাসী আব্দুর রহমানের ছেলে আতিক হাসান ওরফে আইয়ুব (২৫) তার স্কুল পড়ুয়া মেয়েকে বিভিন্ন সময় প্রেম নিবেদনসহ বিয়ের প্রলোভন দিতো। তার মেয়ে তাতে সাড়া না দিলে ধর্ষক সুযোগের অপেক্ষায় থাকতো। ঘটনার দিন গত ৯ অক্টোবর রাত আনুমানিক ১০ টার দিকে বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে আতিক হাসান ওরফে আইয়ুব তার বাড়িতে প্রবেশ করে এবং তার স্কুল পড়ুয়া মেয়েকে ধর্ষণ করে। পুলিশ মামলা গ্রহণ করেই মামলার একমাত্র আসামি আতিক হাসান ওরফে আইয়ুব (২৫) কে গ্রেফতার করে।
বগুড়ার দুপচাচিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ হাসান আলী জানান, রবিবার গ্রেফতারকৃত ধর্ষক আতিক হাসান ওরফে আইয়ুবকে বগুড়া জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। সেই সাথে ধর্ষণের শিকার স্কুলছাত্রীর জবানবন্দী রেকর্ড আদালতে ও ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।