১৩ বছরের এক কিশোরীকে ধর্ষণ করেন তার আপন খালু আব্দুল মতিন ভুঁইয়া । এ ঘটনায় দায়েরকৃত ধর্ষণ মামলায় আব্দুল মতিনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

সোমবার (৭ ডিসেম্বর) দুপুরে তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। গ্রেফতার আব্দুল মতিন ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার কুষ্টিয়া (সেনবাড়ি) গ্রামের বাসিন্দা। তিনি আউট বাড়িয়া গ্রামে শ্বশুর বাড়িতে বসবাস করতেন।

এর আগে সকালে শিক্ষার্থীর বাবা বাদী হয়ে গফরগাঁও থানায় আব্দুল মতিন ভুঁইয়াকে আসামি মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ জানায়, আব্দুল মতিন ভুঁইয়া আত্মীয়তার সুবাদে ভুক্তভোগী কিশোরীর বাড়িতে বেড়াতে যেতেন। এমতাবস্থায় গত অক্টোবর মাসের শেষের দিকে ওই কিশোরীর বাড়িতে যান তিনি। ওইদিন বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে তাকে ধর্ষণ করেন মতিন ভুঁইয়া। এ ঘটনা কাউকে না বলার জন্য হমকি দেন তিনি। কিশোরী মেয়েটিও ভয়ে কাউকে কিছু বলেনি।

গত রোববার (৬ ডিসেম্বর) কিশোরী হঠাৎ করে অসুস্থ হয়ে পড়ে। পরে তাকে পরিবারের লোকজন চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যান। সেখানে আল্ট্রাসনোগ্রাম করলে মেয়েটি এক মাস ১৮ দিনের অন্তঃসত্ত্বা বলে নিশ্চিত করেন চিকিৎসক। পরে বিষয়টি ওই কিশোরী তার পরিবারের সদস্যদের জানায়।

গফরগাঁও থানার ওসি অনুকুল সরকার বলেন, এ ঘটনায় মামলা দায়েরের পর আব্দুল মতিনকেগ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আসামি ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছেন তিসি।

তথ্যসুত্র