১৮ বছরের এক তরুণীকে ধর্ষণ করেন জিহাদ । ৮ ডিসেম্বর ২০২০ তারিখে রাতে ফতুল্লা থানা পুলিশ লম্পট জিহাদকে নিজ বাড়ী থেকে আটক করে।

আটককৃত জিহাদ ফতুল্লা থানার কুতুবপুর ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য আলাউদ্দিন হাওলাদারের ভায়রা ও পাগলা মুসলিম পাড়ার মতিউর রহমানের পুত্র।এর আগে বৃহস্পতিবার (৩ ডিসেম্বর) ধর্ষিতা তরুনী বাদী হয়ে ধর্ষনের অভিযোগ এনে ফতুল্লা মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।
এ বিষয়ে ফতুল্লা থানার এস,আই হুমায়ুন কবির জানায় অভিযোগ পেয়ে অভিযুক্ত জিহাদ কে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে।
ধর্ষিতা তরুনী জানায়,তিন মাস পূর্বে একই এলাকার তার পূর্ব পরিচিত বান্ধবী সুমাইয়া তাকে নিজ বাসায় ডেকে নিয়ে যায়।কিছুক্ষন পরেই তার ও তার বান্ধবীর পূর্ব পরিচিত জিহাদ সেখানে উপস্থিত হয়।

এ সময় কৌশলে তার বান্ধবী ঘর থেকে বের হয়ে বাইরে থেকে ঘরটি তালাবদ্ধ করে দেয়।তালাবদ্ধ ঘরে জিহাদ তাকে তার ইচ্ছের বিরুদ্ধে জোড় পূর্বক ধর্ষন করে এবং আপত্তিকর কিছু দৃশ্য ও শরীরের কাপড় চোপড় এলোমেলো অবস্থায় থাকা ভিডিও ধারণ করে।সে ডাক- চিৎকার করতে চাইলে ধর্ষক জিহাদ তার মুখ চেপে ধরে।
এসময় জিহাদ তাকে বিয়ে করার প্রতিশ্রæতি দিয়ে বলে যে এ বিষয় নিয়ে বেশী বাড়াবাড়ি করলে ধারন করা ভিডিও ইন্টারনেটে ছেড়ে দিবে।এরপর থেকে গত তিন মাসে জিহাদ তার সাথে একাধিকবার শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হয়। এক পর্যায়ে সে গর্ভবতী হয়ে পরলে তাকে কৌশলে ঔষধ সেবন করিয়ে গর্ভে থাকা বাচ্চা নষ্ট করে।

তথ্যসুত্র