প্রবাসীর স্ত্রীকে অপহরণ করে ধর্ষণ করেন বোরহান উদ্দিন । নারীর চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে এসে তাকে আটক করে, এরপর পুলিশ তাকে নিজেদের হেফাজতে নেয়।

জানা গেছে, ওই প্রবাসীর স্ত্রী তার ফুফুর বাড়ি একই উপজেলার সাগুলি গ্রামে যাওয়ার জন্য
গত শনিবার (৩১ অক্টোবর) বিকাল ৩টার দিকে বালিখোলা ঘাটে যান। সেখানে বোরহান উদ্দিনের সঙ্গে তার দেখা হলে সেও সাগুলি গ্রামের আত্মীয়ের বাড়িতে যাবে বলে জানায়। পরে স্বপন মিয়া নামে এক মাঝির নৌকা ভাড়া করে প্রবাসীর স্ত্রীকে নিয়ে বোরহান নৌকায় ওঠে।

বালিখোলা ঘাট থেকে নৌকাটি ছাড়ার পরই বোরহান মাঝির সহযোগিতায় গতিপথ পরিবর্তন করে পাশের ভূষারকান্দা গ্রামের সামনের বিলে নির্জন স্থানে নিয়ে নৌকার দরোজা-জানালা বন্ধ করে জোরপূর্বক ওই নারীকে ধর্ষণ করে বোরহান।

এ ঘটনার পর রাত ৮টার দিকে ফাজিলখালী নামক বাজার ঘাটে নিয়ে প্রবাসীর স্ত্রীকে নৌকা থেকে নামিয়ে একটি অটোরিকশায় তুলে দেয়ার সময় ভুক্তভোগী নারী চিৎকার করলে আশপাশের লোকজন ছুটে আসে। তারা এ ঘটনা জানতে পেরে ধর্ষক যুবক বোরহানকে আটক করে। এ সময় নৌকার মাঝি স্বপন মিয়া নৌকা নিয়ে পালিয়ে যায়।

খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে ধর্ষক যুবককে আটক এবং ওই নারীকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। গত রোববার বিকালে ভুক্তভোগী নিজে বাদি হয়ে করিমগঞ্জ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেছেন।