ঝালকাঠির নতুন চল এলাকায় এক কিশোরীকে ওড়না দিয়ে মুখ বেঁধে ধর্ষণ করেন ছাত্রলীগ নেতা মো. রানা  খলিফা । বুধবার (২ মার্চ ২০২১) দুপুরে ঝালকাঠির নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইব্যুনাল-২ এর বিচারক অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ এস কে এম তোফায়েল হাসান মো. রানা খলিফা সহ দুই যুবককে আমৃত্যু কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন, শহরের সিটিপার্ক এলাকার মো. রানা খলিফা (২৮) ও মো. নাদিম (৩২)। রানা খলিফা ঝালকাঠি শহর ছাত্রলীগের যুগ্ম সম্পাদক এবং সিটি পার্ক নতুন চর এলাকার প্রবাসী ইদ্রিস খলিফার ছেলে। আর নাদিম রিং রোড এলাকার মো. আউয়াল এন ছেলে এবং একটি ‘ছ’ মিলের কর্মচারী। রায় ঘোষণার সময় দণ্ডপ্রাপ্তরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

রাষ্ট্রপক্ষের মামলা পরিচালনাকারী অতিরিক্ত সরকারি কৌঁসুলী আ স ম মোস্তাফিজুর রহমান মনু এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ২০১৪ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি নতুন চর এলাকার ওই কিশোরীকে ঘরে রেখে তার মা বাইরে যায়। এ সুযোগে একা পেয়ে কিশোরীর ওড়না দিয়ে মুখ বেঁধে রানা ও নাদিম ধর্ষণ করে। রাত ১০টার দিকে তার মা ফিরে এলে ধর্ষণের শিকার ওই কিশোরী মাকে বিষয়টি জানায়।

প্রথমে পরিবার সবাই ঘটনাটি চেপে রাখলেও কয়েক মাস পর মেয়েটি অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে। ঘটনায় পাঁচ মাস পর ২০১৪ সালের ১৮ জুন মেয়েটির মা বাদী হয়ে ঝালকাঠি থানায় দুই যুবককে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করেন। ঝালকাঠি থানার উপপরিদর্শক গৌতম কুমার ঘোষ মামলাটি তদন্ত করে ওই বছরের ১৫ সেপ্টেম্বর অভিযোগপত্র দাখিল করেন। চার্জশিট দাখিলের একমাস পরে ধর্ষণের শিকার কিশোরী একটি কন্যা সন্তান জন্ম দেয়। সেই কন্যা সন্তানের বয়স ছয় বছর তিন মাস। মামলাটি বিচারের জন্য নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল ২ আসলে আদালত সাতজনের সাক্ষ্যগ্রহণ করে যুক্তিতর্ক শেষে বুধবার এ রায় ঘোষণা করেন।

রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন অতিরিক্ত সরকারি কৌঁসুলি আ.স.ম মোস্তাফিজুর রহমান মনু ও আসামি পক্ষে ছিলেন মিজানুর রহমান মুবিন।

তথ্যসুত্র