কুমিল্লার হোমনায় বিয়ের প্রলোভনে এক নারীকে ধর্ষণ করেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বাঞ্ছারামপুর উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। বুধবার গভীর রাতে বাঞ্ছারামপুর মুসা মার্কেট থেকে রিপনকে গ্রেফতার করা হয়। বৃহস্পতিবার তাকে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

রিপন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এবং মৃত ফজলুল হকের ছেলে।

হোমনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কায়েস আকন্দ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মামলার বরাত দিয়ে ওসি জানান, ২০১৭ সালে একটি পণ্য মেলায় ওই নারীর সঙ্গে পরিচয় হয় রিপনের। রিপন তার স্ত্রী ও সন্তানের কথা গোপন রেখে ওই নারীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলেন। এক পর্যায়ে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করেন।

বিবাহ বিচ্ছেদের পর ওই নারী কুমিল্লার হোমনা আদর্শ পাড়ায় একটি ভাড়া বাসায় কাপড়ের ব্যবসা করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছিলেন। ২০১৭ সালের ৮ মে রাতে রিপন সরকার ওই নারীর বাসায় গিয়ে বিয়ের আশ্বাস দিয়ে ধর্ষণ করেন। এরপর অনেকদিন তারা স্বামী-স্ত্রী পরিচয় দিয়ে একত্রে বসবাস করেন।